কিভাবে ব্লগ তৈরি করব ? ফ্রি ব্লগ তৈরি করার নিয়ম

ব্লগ কি ? আজকে আপনাদের আমি ব্লগ কিভাবে তৈরী করতে হয় এতে কিভাবে লিখবেন এবং অর্থ উপার্জন করবেন সেই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। আজকের দিনে ইন্টারনেট অর্থ উপার্জন একটা মাধ্যম হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রথমে ব্লগ কিভাবে তৈরি করতে হয় তারপর ধাপে ধাপে বিস্তারিত বর্ণনা করা হবে।

ব্লগ বা ওয়েবসাইট তৈরী করা আজ খুব সহজ কাজ। কিন্তু যে জানেনা তার কাছে এটা খুব কঠিন মনে হতে পারে। তাই ফ্রি অর্থাৎ টাকা বিনিয়োগ ছাড়া ব্লগ কিভাবে বানাতে হয় জানতে পারবেন। ব্লগ কি  ? আমরা যখন google এ কিছু search করি বা খোজাখুজি করি তখন আমাদের সামনে উত্তর বেরিয়ে আসে, যে উত্তর টি আমরা পাই সেটা কোনো ব্লগ বা website থেকেই পাই। আমাদের মতো কেউ লিখে রাখে। যে লেখে ব্লগে লেখে এবং লেখককে ব্লগার বলা হয়। 

ব্লগ তৈরি করার নিয়ম
কিভাবে ব্লগ তৈরি করব

ব্লগ কি এবং এর সংক্ষিপ্ত ইতিহাস  what is blog ?

ব্লগ কি ? এটি কিভাবে এসেছে ? কবে শুরু হয়েছিল ? এগুলো জানার জন্য নিশ্চয় আপনাদের মন উৎসাহিত হয়ে আছে। তো চলুন জানি ব্লগে লেখা কবে শুরু হয়েছিল। 1997 সালের 17 ডিসেম্বর Journ Burger ( জর্ন বার্গার ) প্রথম welblog তৈরি করেছিলেন। পিটার মারহোলগের একটা ব্লগ ছিল যার নাম pitarm.com এই ব্লগে তিনি weblog নাম ছেড়ে blog নাম দিয়ে ছিলেন। 

1999 সালের পর থেকে ব্লগের জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকে। এই সময় এর জনপ্রিয়তা এত বেড়েছে যে প্রতিদিন বিভিন্ন ভাষায় হাজার হাজার ব্লগ তৈরি হচ্ছে। 

আলেক্সা কি ? কিভাবে আপনার ব্লগের আলেক্সা র‍্যাঙ্কিংএ উন্নতি করবেন ?

ব্লগ হচ্ছে ইন্টারনেটে লেখার মাধ্যম । কেউ কেউ এমন আছে যে প্রত‍্যেক দিন নিজের ডাইরিতে কিছু না কিছু লিখে রাখে। সেই রকম ব্লগ কে ইন্টারনেটে ডাইরি বলতে পারেন। আপনার যে বিষয়ে ভালো জ্ঞান আছে অর্থাৎ আপনি যে বিষয়ে দক্ষ সেই বিষয় নিয়ে ব্লগ বানাতে পারেন। 

ব্লগ তৈরি করার জন্য ইন্টারনেটে দুটি সাইট খুব জনপ্রিয়। একটি হচ্ছে blogspot.com এটি গূগল এর একটা ফ্রি পরিশেবা। আরেকটি হল wordpress এটি ফ্রি পরিশেবা নয় । wordpress এ ব্লগ তৈরি করতে হলে আপনাকে কিছু টাকা Invest করতে হবে। তবে আপনি যদি Professional blog বানাতে চান তাহলে আমি বলব ওয়ার্ডপ্রেস এ ব্লগ তৈরি করুন তার ফল বুঝতে পারবেন। অবশ্যই better result পাবেন।

WordPress এ ব্লগ তৈরি করতে আপনাকে প্রথমে মোটামুটি 5000 টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। কেবলমাত্র Hosting এবং Domain কেনার জন্য। Theme কিনতে হলে অথবা ব্লগের design আপনার মনের মতো অর্থাৎ আকর্ষণীয় করতে হলে আরও খরচ হবে। কিন্তু আপনাকে আমি প্রাথমিক ভাবে hosting এবং Domain কিনে ব্লগ তৈরি করতে পরামর্শ দেব। আপনি free theme অনেক পেয়ে যাবেন, তাতেই আপনার ব্লগের design সুন্দর হবে। পরে theme কিনতে পারেন এতে কোনো অসুবিধা হবে না।

আবার প্রথমে google এর blogspot.com থেকেও ব্লগ তৈরি করতে পারেন এতে কোনো অর্থ Invest করতে হবে না। পরে যখন আপনি blogging করা শিখে নেবেন তার পর আপনার ব্লগটিকে wordpress এ Shift করতে পারবেন। 

ব্লগ তৈরি করার লাভ বা সুবিধা / আমি ব্লগ তৈরি করব কেন ?

আপনার নিজের একটা ব্লগ থাকলে আপনার অনেক সুবিধা বা লাভ হতে পারে। যেমন ধরুন লেখা-লেখি করলে আপনি লিখতে সাবলীল হতে পারবেন, ইন্টারনেটে আপনার পরিচিতি বাড়বে, টাইপিং এর গতি বাড়বে , লেখার এবং ব্লগিং করার আগ্রহ বৃদ্ধি পাবে। 

সবচেয়ে বেশি লাভ তখনই হবে যখন আপনার ব্লগটি জনপ্রিয় হয়ে উঠবে। আপনার ব্লগের traffic বৃদ্ধি পেলে তখন আপনি টাকা আয় এর বিভিন্ন মাধ্যম ব‍্যবহার করে ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। আর মানুষ তো এটাই চাই যে তার পরিশ্রমের কিছু মূল্য সে পাবে। 

বাংলা ভাষায় ব্লগিংয়ের ভবিষ্যৎ কী ? উজ্জ্বল না অন্ধকার

এগুলো ছাড়া লেখা-লেখি করে অনেক মানুষের উপকার করা যাবে। google বা অন্য কোন search engine এ মানুষ তার যেকোনো সমস্যার কথা খুজল আর আপনি সেই বিষয়ে লিখে রেখেছেন তাহলে সেই মানুষের উপকারে লাগল।

এছাড়া আপনি যদি নিজের লাভের কথা ভাবেন তাহলে দেখতে পাবেন এতে আপনার লাভ অনেক বেশি হবে যেটা হয়তো আপনি কল্পনাও করেননি। আমি এমন ব্লগারের কথা জানি যারা শখের বসে ব্লগিং করতে এসে এত জনপ্রিয় হয়েছে যে তারা ব্লগিং করে প্রচুর অর্থ উপার্জন করছে। 

আমি আপনাদের এমন দুই জন ভারতীয় ব্লগারের নাম করব যারা ব্লগ থেকে প্রচুর অর্থ উপার্জন করছে। একজন অমিত আগ্রওয়াল এবং আরেক জন হর্ষ আগ্রওয়াল। যারা মাসের শেষে $50000 থেকে $60000 আয় করে। অর্থাৎ 35 লাখ থেকে 45 লাখ ভারতীয় টাকা। আমি হর্ষ আগ্রওয়াল সাক্ষাৎকার এ সাম্প্রতিক শুনেছিলাম সে ব্লগ থেকে 35 লাখ টাকা প্রতি মাসে আয় করে।

উপরে যে দুই জন ব্লগারের নাম বললাম এরা ইংরেজি ভাষায় blogging করে। এরা তাদের ব্লগে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে আয় করে থাকে। ইংরেজি ভাষায় ব্লগিং করার কারণে তাদের আয় করার উপায় অনেক বেশি কিন্তু আপনার চিন্তা করার কিছু নেই । আপনি যদি ভালো ভাবে লিখতে পারেন আর সঠিক Keyword ব‍্যবহার করেন তাহলে বাংলা ব্লগেও যথেষ্ট আয় করতে পারবেন। 

কোন্ কোন্ বিষয়ের ওপর ব্লগ তৈরি করতে পারি / ব্লগের niche বা Topic নির্বাচন

ব্লগের বিষয় কিভাবে নির্বাচন করব ? ব্লগের ভাষায় ব্লগের বিষয়কে niche ( নিচ বা নিচে ) বলা হয়। আপনার যে বিষয়ে দক্ষতা আছে অর্থাৎ আপনার যে বিষয়ে বেশি জ্ঞান আছে সেই বিষয়ের ওপর ব্লগিং করা বুদ্ধিমানের কাজ হবে। যে বিষয়ে আপনি জ্ঞানী সেই বিষয়ে লিখতেও আগ্রহ বৃদ্ধি পাবে। আর যে বিষয়ে আপনার জ্ঞান নেই সেই বিষয়ে আপনি বেশি দিন লেখা চালিয়ে যেতে পারবেন না। এতে কিহবে আপনি অল্প দিনের মধ্যেই লেখার আগ্রহ হারাবেন এবং ব্লগিং থেকে ছিটকে যাবেন। 

আপনি হয়তো ভাবছেন এমন বিষয় নিয়ে ব্লগিং করব যে বিষয় খুব কঠিন। কিন্তু এই ধারণা ভুল প্রমাণিত হবে কিছু দিন পর কারণ আপনার কাছে যে বিষয় কঠিন সেই বিষয় অনেকের কাছে খুবই সহজ। তাই যারা ব্লগিং করতে চাই তাদের পরামর্শ দেব নিজের জানা বিষয়ে ব্লগিং করতে। এতে সফল হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকবে। 

যেকোনো Topic নিয়ে ব্লগিং করা যায়। এতে কোনো বাধা নেই কিন্তু আমি আপনাদের পরামর্শ দেব সেই বিষয়গুলি নিয়ে ব্লগিং করুন যেটা মানুষের উপকারে আসবে। কোনো খারাপ বিষয় নিয়ে ব্লগিং করবেন না তাতে আপনার সম্মানহানী হবে। আমি নিচে কিছু Topic নিয়ে আলোচনা করব। সেই বিষয় গুলোর মধ্য থেকে কোন এক বিষয়ে ব্লগিং করতে পারেন।

1. শিক্ষা

2. কেরিয়ার

3. টেকনিক্যাল জ্ঞান

4. স্বাস্থ্য

5. ব‍্যবসা

6. কৃষি কাজ

7. অটোমোবাইল

8. রান্না করার টিপস

9. লাইফ স্টোরি

10. স্টাডি মেটেরিয়ালস্

11. গূগল টুলস্

12. সরকারি চাকরির পরীক্ষা

13. এন্ড্রয়েড মোবাইল ট্রিকস

14. স্মার্টফোন

15. রাজনৈতিক তথ্য

16. টূর এন্ড ট্রাভেলস

17. টিউটোরিয়াল

18. শিক্ষা মূলক গল্প লেখা

19. এফিলিয়েট মার্কেটিং

20. মোটিভেশনাল

21. ছোট ব‍্যবসার ধারণা

22. ফার্মিং

23. পশু পালন

24. কুটির শিল্প

25. ইভেন্ট ব্লগিং

26. জমি জায়গা সংক্রান্ত

27. বিশিষ্ট ব‍্যক্তিদের সাক্ষাৎকার

28. আর্কিটেকচার

29. সেল্ফ পারশোন‍্যল ডেভেলপমেন্ট

30. কমিউনিকেশন স্কিলস্ ডেভেলপমেন্ট

31. বাড়ির অন্দরমহল সজ্জা

32. ওয়েব ডিজাইন

33. সেল্ফ ডিফেন্স

34. উদ‍্যান পালন বিদ‍্যা

35. গীফ্ট আইডিয়া

36. মোবাইল রিভিউ

37. ব্লগিং টিউটোরিয়াল

38. সরকারি চাকরির কোচিং

39. মেকানিক্যাল 

40. হস্তশিল্প

এছাড়াও অনেক বিষয় আছে যা নিয়ে ব্লগিং করতে পারেন। আমি আপনাদের কিছু ধারণা দিলাম। আপনি যে বিষয় নিয়ে ব্লগিং করুন সফল হতে হলে আপনাকে রিসার্চ করতে হবে। 

আমি কি সফল ব্লগার হতে পারব / সফল ব্লগার কিভাবে হবো

ব্লগ তৈরি করা খুবই সহজ কিন্তু সফল হওয়া অত সহজ নয়। ব্লগে সফল হতে গেলে প্রথম প্রথম খুব পরিশ্রম করতে হবে। প্রত‍্যেক দিন আপনাকে লিখতে হবে। এতে আপনার লেখার গতি বাড়বে। প্রতি দিন একটি করে আর্টিকেল পাবলিশ অর্থাৎ প্রকাশ করতে হবে। সেটা না পারলেও অন্তত পক্ষে সপ্তাহে 3 টি থেকে 4 টি পোস্ট করতে হবে।

ব্লগিংএ সফল হওয়ার কৌশল। কিভাবে ব্লগে সফল হবো ?

 লেখার অভ‍্যাস তৈরি করতে হবে। যত লিখবেন তত আপনার লেখার স্পীড বৃদ্ধি পাবে তাতে আপনার দুটি লাভ হবে এক অল্প সময়ে বেশি Article প্রকাশ করতে পারবেন, দুই ব্লগের Post বেড়ে যাওয়াতে পাঠক সংখ্যা অর্থাৎ viewer বাড়তে থাকবে। 

আপনি যদি সফল ব্লগার হতে চান তাহলে আপনার মনের মধ্যে কয়েকটি বিষয় set করে নিতে হবে

 1. ধৈর্য: ব্লগিং এ সফল হওয়ার মূল কথা ধৈর্য ধরতে হবে। শুধু ব্লগিং এর ক্ষেত্রে নয় যেকোনো ক্ষেত্রে সফল হতে হলে ধৈর্য্য ধরতেই হবে। আপনাকে বিনা লাভ দেখে পরিশ্রম করে যেতে হবে। প্রথম প্রথম আপনার ব্লগে সেরকম ভিউয়ার পাবেন না। এতে হতাশ হলে হবে না। আপনাকে continue এক বছর লিখতে থাকতে হবে তার পর ধীরে ধীরে আপনি ফল বুঝতে পারবেন।

2. হার্ডওয়ার্কিং এর সাথে স্মার্টওয়ার্কিং : আপনাকে পরিশ্রমের সাথে সাথে স্মার্ট ওয়ার্কও করতে হবে অর্থাৎ ইন্টারনেটে সার্চ করে দেখতে হবে কোন বিষয় গুলো নেই, সেই বিষয় নিয়ে article প্রকাশ করতে হবে। তার সাথে সাথে যে বিষয়ে লিখবেন সেটা বিস্তারিত লিখবেন এতে কি হবে, আর্টিকেল টা বেশ বড় হবে এবং পাঠক তার প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবে। 

3. প্রতিদিন লেখার অভ‍্যাস তৈরি: ব্লগিং এ সফল হতে চাইলে আপনাকে প্রতিদিন লিখতে হবে। লেখার অভ‍্যাস তৈরি করতে হবে। ব্লগিং করার মূল কাজ উৎকৃষ্ট লেখা প্রকাশ করা। আপনি যত ভালো quality সম্পন্ন আর্টিকেল প্রকাশ করতে পারবেন তত বেশি আপনি পাঠক পাবেন। এতে আপনার তাড়াতাড়ি সফল হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকবে।

4. জনপ্রিয় ব্লগের বিষয় নির্বাচন: এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে আপনার ব্লগের বিষয় কি হবে। আপনি এমন বিষয় নিয়ে ব্লগিং করছেন যেটা ইন্টারনেটে প্রচুর আছে তাহলে সম্ভাবনা বেশি যে আপনি সহজে সফল হতে পারবেন না। তাই এমন বিষয় নিয়ে ব্লগিং করুন যেটা ইন্টারনেটে কম আছে তার সাথে সাথে চাহিদাও আছে । তাহলে আপনি সহজেই সফল হতে পারবেন।

উপরের এই বিষয়গুলো মাথায় রেখে ব্লগিং করলে আপনার সফল হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই বেড়ে যাবে। এবার আমরা জানব ব্লগ তৈরি করতে কি কি প্রয়োজন।

ব্লগ তৈরি করতে কি কি প্রয়োজন

ব্লগ তৈরি করার জন্য কম্পিউটার, ল‍্যাপটপ অথবা একটা এন্ড্রয়েড মোবাইলের প্রয়োজন। সবচেয়ে ভালো হয় Computer অথবা Laptop থাকলে। এতে ব্লগের ডিজাইন করতে সুবিধা হয়। আর এগুলো না থাকলেও এন্ড্রয়েড মোবাইলের সাহায্যে ব্লগ তৈরি করতে পারেন। কিন্তু এতে কিছু অসুবিধা হতে পারে যেমন ব্লগের ডিজাইন করতে, Theme ( থিম ) বা Template এর html কোড setting করতে সমস্যা হতে পারে। কিন্তু মোবাইল থেকে সতর্ক ভাবে করলে হয়ে যাবে। 

ব্লগ তৈরি করতে একটা Gmail account এর প্রয়োজন। যারা ইন্টারনেটে ব‍্যবহার করে প্রত‍্যেকের জিমেইল একাউন্ট আছে। তাছাড়া আপনি নতুন জিমেইল একাউন্ট তৈরি করে ব্লগ create করতে পারেন। প্রথমে জেনে নিই gmail account কিভাবে তৈরি করতে হয়।

জিমেইল একাউন্ট কিভাবে তৈরি করব 

Gmail account তৈরি করা খুবই সহজ। প্রথমে Google এ gmail sign up লিখে সার্চ করতে হবে। এরপর ‘create your google Account’  লিঙ্কটিতে click করতে হবে। তারপর create account এ ক্লিক করতে হবে। একটা নতুন ফর্ম খুলবে, এই ফর্মটি fill up করতে হবে। 

1.name: এখানে আপনার নাম এবং পদবী লিখতে হবে।

2. User name: এখানে ইউজার নাম দিতে হবে। user name এমন দিতে হবে যা এর আগে কেউ ব‍্যবহার করেনি। আপনার নাম লিখে দেখতে পারেন। যদি unavailable দেখায় তাহলে অন্য কিছু ব‍্যবহার করতে হবে। যেমন আপনার নাম যদি সুমন হয় তাহলে suman123 দিয়ে দেখতে পারেন।

3. Password: এখানে পাসওয়ার্ড দিতে হবে। এমন পাসওয়ার্ড দেবেন যাতে কেউ না জানতে পারে। password এ সংখ্যা এবং অক্ষর ব‍্যবহার করবেন।

4. Confirm password: এখানে আপনার পাসওয়ার্ড টি পুনরায় লিখে confirm করতে হবে।

5. Date of birth: এখানে আপনার জন্ম তারিখ দিতে হবে।

6. Gender: আপনি মহিলা না পুরুষ লিখতে হবে।

7. Mobile number: আপনার মোবাইল নাম্বার লিখুন।

8. পুরোনো জিমেইল আইডি থাকলে দিতে পারেন না দিতে চাইলে জায়গা টি ছেড়ে দিন।

9. Location: আপনি যে দেশের সেটা লিখুন।

10. Gmail এর term and conditions এ click করুন।

11. Next step button এ ক্লিক করতে হবে।

আপনার মোবাইল নাম্বার verification এর জন্য verify এ ক্লিক করুন। এর পর আপনার মোবাইলে otp code আসবে । এটা দিয়ে continue বাটন এ click করুন। 

আপনার gmail আইডি তৈরি হয়ে গেছে। এটি ইন্টারনেটে যেকোনো কাজ করতে প্রয়োজন হবে বিশেষ করে Google এর সমস্ত কাজের জন্য Gmail account দরকার।

ব্লগ কিভাবে তৈরি করব / How to create blog

এবার আমরা জানবো blog কিভাবে তৈরী করতে হবে। Blogger.com অথবা wordpress থেকে ব্লগ তৈরি করতে পারেন। blogger.com গূগল এর একটি সার্ভিস। এর মাধ্যমে ফ্রি তে ব্লগ তৈরি  করতে পারবেন। এটি Google এর সার্ভিস হওয়ার কারণে Secure এবং ঝুঁকি কম। আপনি যদি ব্লগ সম্বন্ধে কিছু না জানেন তাহলে Blogger.com থেকে ব্লগ তৈরি করার পরামর্শ দেব। 

অন্য দিকে WordPress থেকে ব্লগ তৈরি করতে আপনাকে কিছু টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। Domain এবং Hosting কিনতে হবে যার খরচ পড়বে কমপক্ষে 4000 টাকা থেকে 5000 টাকা। আপনি যদি professional blogging করতে চান তাহলে WordPress এ ব্লগ করায় ভালো হবে।

আজকে আমি আপনাদের ফ্রি অর্থাৎ কোনো অর্থ বিনিয়োগ ছাড়াই কিভাবে একটা ব্লগ তৈরি করবেন বিস্তারিত জানাবো। তাহলে কথা না বাড়িয়ে চলুন blogger.com এ কিভাবে ব্লগ তৈরি করতে হয় শিখে নিই।

ব্লগ তৈরি করার জন্য প্রথমে www.blogger.com এ যেতে হবে অর্থাৎ google এ blogger.com লিখে সার্চ করতে হবে। তারপর আপনার জিমেইল আইডি দিয়ে sign up করতে হবে। তারপর

1. যে page টি open হবে সেখানে create new blog এ ক্লিক করতে হবে।

2. আপনার gmail Id দিয়ে sign in করতে হবে।

3. এখানে নতুন একটি page খুলবে, এই ফর্মটি বিস্তারিত পূরণ করতে হবে। যেমন: –

Title: ব্লগের নাম আপনি যা দিতে চান এখানে লিখুন। যেমন Hinglish me jano

Address: এখানে ব্লগের ঠিকানা অর্থাৎ url ঠিক করতে হবে। যে url আগে ব‍্যবহার করা হয়নি সেটা লিখতে হবে। তা নাহলে unavailable দেখাবে। উদাহরণ: hinglishmejano.blogspot.com

ব্লগার প্রোফাইলে display তে admin name লিখতে হবে। শেষে finish এ ক্লিক করতে হবে।

আপনার ব্লগ তৈরি হয়ে গেছে। এবার ব্লগটিকে design করতে হবে। ব্লগ ডিজাইন করার জন্য template বা Theme পরিবর্তন করতে হবে। কারণ যে theme দেওয়া থাকে সেটা customize করা থাকে না।

ব্লগের জন্য custom theme কোথা থেকে download করব /  ব্লগের ডিজাইন করার জন্য কি কি করতে হবে

ব্লগের সুন্দর ডিজাইন করার জন্য যে template দেওয়া থাকে এতে ভালো হবে না তাই আপনাকে কোনো templates provider সাইট থেকে template download করতে হবে। আপনি চাইলে ওই সাইট থেকে template কিনতে পারেন অথবা ওদের ফ্রি টেমপ্লেট ব‍্যবহার করতে পারেন।

কিভাবে ব্লগ বা ওয়েবসাইটের ডিজাইন করব

Goyabitemplate, Soratemplate সাইট থেকে আপনার পছন্দ মতো টেমপ্লেট ডাউনলোড করতে পারেন। এরা ফ্রিতে তাদের টেমপ্লেট ব‍্যবহার করার সুবিধা দেয়। টেমপ্লেট কিনে ব‍্যবহার করলে তার ডিজাইন আরও সুন্দর করতে পারবেন কারন ফ্রি টেম্পলেটে লিমিট ফিচার্স্ দেওয়া থাকে কিন্তু প্রিমিয়াম টেম্পলেটে unlimited ফিচার্স্ ব‍্যবহার করার সুযোগ রয়েছে।

আর ব্লগের design কি কিভাবে করবেন ? ব্লগের ডিজাইন করার জন্য youtube অথবা google এ দেখবেন অনেক টিউটোরিয়াল পেয়ে যাবেন।

ব্লগের dashboard সম্পর্কে কিছু ধারণা

ব্লগের সুন্দর ডিজাইন করার জন্য ফ্রি টেমপ্লেট কোথা থেকে ডাউনলোড করতে হবে জানতে পারলেন এবার আপনাদের ব্লগের ডাশবোর্ডে কি আছে অর্থাৎ dashboard সম্পর্কে জানতে পারবেন। ব্লগ তৈরী করার পর ব্লগের dashboard এর সাথে পরিচিত হওয়া খুবই দরকার। কারণ ব্লগ dashboard থেকে আপনাকে ব্লগের Article লিখতে হবে। তাছাড়া ব্লগের সেটিংস সম্পর্কে সব কিছু জানতে পারবেন। তাহলে চলুন ব্লগের ডাশবোর্ড সম্পর্কে পরিচিত হই।

কিভাবে ব্লগ তৈরি করব ?
কিভাবে ফ্রিতে ব্লগ তৈরি করবো

1. New Post: এখান থেকে ব্লগের নতুন article লিখতে হবে। এর উপর ক্লিক করলেই একটি blank page খুলবে সেখানে ব্লগের জন্য post লিখতে পারবেন। আপনার ব্লগের বিষয় অনুযায়ী আর্টিকেল লেখা যাবে।

2. Post: এখানে ক্লিক করলেই আপনার ব্লগে প্রকাশিত আর্টিকেল গুলো দেখতে পাবেন। তাছাড়া যে আর্টিকেল গুলো লেখা হয়েছে কিন্তু publish করা হয়নি সেগুলো draft এ দেখতে পাবেন।

3. Stats: আপনার ব্লগে কতজন user এসেছে। ব্লগের viewer কত হয়েছে, কোন্ দেশ থেকে আপনার ব্লগ দেখেছে সব কিছু জানতে পারবেন।

4. Comments: ব্লগে কেউ comment করলে সেটা দেখতে পাবেন।

5. Earnings: আপনার ব্লগটিকে Google Adsense এর সাথে Add করে আপনি অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। এর জন্য আপনার ব্লগে Traffic আনতে হবে অর্থাৎ ভিউয়ার বাড়াতে হবে। তার পর এখান থেকে Adsense এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

6. Pages: ব্লগে About us, Contact us, privacy policy এই page গুলো এখান থেকে তৈরী করতে পারেন। এখানে ক্লিক করলেই আলাদা আলাদা page লেখার জন্য blank page open হবে। সেখানে Title এ কি page তৈরি করতে চান সেটা লেখবেন। যদি Contact Us পেজ তৈরি করতে চান তাহলে Title এ Contact Us লিখতে হবে। 

7. Lay Out: এখান থেকে আপনার ব্লগের সুন্দর ডিজাইন করতে পারবেন। page গুলোরl link add করতে পারবেন। extra wadget গুলো সরাতে পারবেন।

8. Theme: এখান থেকেও ব্লগের ডিজাইন করা হয়। অনেক কিছু আছে যেগুলো html কোডের মাধ্যমে ঠিক করতে হয় সেগুলো এখান থেকেই ঠিক করতে হবে। তাছাড়াও আপনার মনের মতো theme বা Template upload করতে পারবেন।

9. Settings: এখানে ক্লিক করলেই ব্লগ সেটিংস এর অনেক option দেখতে পাবেন। যেমন Country setting, time zone setting ইত্যাদি। তাছাড়াও আরও অনেক কিছু setting করতে পারবেন।

10. Reading list: আপনি যদি কোনো ব্লগ follow করেন তাহলে তার link add করতে পারেন।

11. View Blog: এটা ক্লিক করলে আপনার ব্লগের Home Page এ যেতে পারবেন। 

পরিশেষে:–

 আশা করি ব্লগ সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা দিতে পেরেছি। আপনি ব্লগ শখের বশে করুন অথবা পেশাগত করতে চান সব ক্ষেত্রেই আপনাকে ধৈর্যের সাথেই করতে হবে। কারণ ব্লগিং খুব ধৈর্যের কাজ। ব্লগে সফল হতে হলে নিয়মিত কাজ করে যেতে হবে। আর সফল ব্লগার তখনই বলা হবে যখন আপনার লেখার দ্বারা ব্লগের ভিউয়ার বাড়াতে পারবেন। তাই এর জন্য পাঠকদের ভালো ভালো আর্টিকেল উপহার দিতে হবে। অর্থাৎ আপনার লেখার দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে।

বন্ধুরা ব্লগ কিভাবে তৈরি করতে হয় ? এই article টি কেমন লাগল অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে আপনার বন্ধুদের share করবেন।

Leave a Comment